গণভবনে সংলাপে বসেছে এ কিউ এম বদরুদ্দোজা চৌধুরী নেতৃত্বাধীন যুক্তফ্রন্ট।

দেশযোগ ডেস্ক: নির্বচন কে সামনে রেখে বহুল আলোচিত এই সংলাপে যোগ দিতে বদরুদ্দোজা চৌধুরীর নেতৃত্বে যুক্তফ্রন্টের প্রতিনিধি দলের সদস্যরা সন্ধ্যা সোয়া ৭টার পর গণভবনে পৌঁছান।

ময়মনসিংহে বেশ কিছু প্রকল্প উদ্বোধন এবং জনসভায় বক্তৃতা দিয়ে সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার আগেই গণভবনে ফেরেন প্রধানমন্ত্রী।

যুক্তফ্রন্টের নেতারা গণভবনে ঢুকে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরসহ উপস্থিত নেতৃবৃন্দের সঙ্গে কুশল বিনিময় করেন। এরপর তারা ব্যাংকোয়েট হলে ঢুকে নির্ধারিত আসনে বসেন।

সন্ধ্যা ৭টা ৪২ মিনিটে প্রধানমন্ত্রী ব্যাংকোয়েট হলে ঢুকলে বিকল্প ধারার বদরুদ্দোজা চৌধুরী, আবদুল মান্নান ও শমসের মবিন চৌধুরী তাকে ফুল দিয়ে স্বাগত জানান।

সূচনা বক্তব্যে প্রধানমন্ত্রী অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন অনুষ্ঠানের বিষয়ে দৃঢ় আশাবাদ ব্যক্ত করে বলেন, “যাতে জনগণ তাদের নেতৃত্ব খুঁজে নিতে পারে, কীভাবে তা খুঁজে নিতে পারে সেটাই লক্ষ্য।”

গণতান্ত্রিক ধারা অব্যাহত রাখা ছাড়া উন্নয়ন সম্ভব নয় মন্তব্য করে শেখ হাসিনা বলেন, “গণতান্ত্রিক ধারা অব্যাহত থাকুক। উন্নয়নের ধারা সচল থাকুক। অনেক ঘাত প্রতিঘাত বাধা অতিক্রম করে আমরা গণতান্ত্রিক ধারা অবাহত রেখেছি।”

তিনি বলেন, “দেশের মানুষের কল্যাণে কাজ করে যাচ্ছি। দেশ এগিয়ে যাচ্ছে। দেশের উন্নয়নের ধারা অবাহত থাকুক, সেটাই আমরা চাই।”

এরপর যুক্তফ্রন্টের ২১ নেতার সঙ্গে রুদ্ধদ্বার আলোচনা করেন শেখ হাসিনা। তার সঙ্গে ছিলেন ক্ষমতাসীন জোটের ২২ নেতা।

সংলাপ শেষে রাতে বদরুদ্দোজা চৌধুরীর বারিধারার বাসায় সাংবাদিকদের ব্রিফ করা হবে বলে যুক্তফ্রন্টের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে।

সংলাপে বিকল্প ধারার সভাপতি বদরুদ্দোজা চৌধুরীর নেতৃত্বে যুক্তফ্রন্টের প্রতিনিধি দলে রয়েছেন বিকল্পধারার নেতা আবদুল মান্নান, শমসের মবিন চৌধুরী, গোলাম সারোয়ার মিলন, আবদুর রউফ মান্নান, ইঞ্জিনিয়ার মুহম্মদ ইউসুফ, সহসভাপতি মাহমুদা চৌধুরী, মাহবুব আলী, সাংগঠনিক সম্পাদক ব্যারিস্টার ওমর ফারুক ও নির্বাহী সদস্য সাবেক এমপি মাজহারুল হক শাহ চৌধুরী; সাবেক সংসদ সদস্য এইচ এম গোলাম রেজা; বিএলডিপি সভাপতি নাজিম উদ্দিন আল আজাদ, সাধারণ সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন; বাংলাদেশ ন্যাপের সভাপতি জেবেল রহমান গানি, মহাসচিব এম গোলাম মোস্তফা ভুইয়া; ন্যাশনাল ডেমোক্রেটিক পার্টির চেয়ারম্যান (এনডিপি) খোন্দকার গোলাম মোর্ত্তুজা, মহাসচিব মঞ্জুর হোসেন ইশা; বাংলাদেশ জনতা পার্টির সভাপতি শেখ আসাদুজ্জামান; জনদলের চেয়ারম্যান মাহবুবুর রহমান জয় চৌধুরী; হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ইউনাইটেড মাইনরিটি ফ্রন্টের সভাপতি দীলিপ কুমার দাশ এবং লেবার পার্টির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান হামদুল্লাহ আল মেহেদী।

অন্যদিকে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ২৩ সদস্যের প্রতিনিধি দলে রয়েছেন আওয়ামী লীগ নেতা ওবায়দুল কাদের, আমির হোসেন আমু, তোফায়েল আহমেদ, মতিয়া চৌধুরী, শেখ ফজলুল করিম সেলিম, মোহাম্মদ নাসিম, কাজী জাফর উল্যাহ, আবদুল মতিন খসরু, মো.আব্দুর রাজ্জাক, রমেশ চন্দ্র সেন, আনিসুল হক, মাহাবুব-উল আলম  হানিফ, আবদুর রহমান, দীপু মনি, জাহাঙ্গীর কবির নানক, আবদুস সোবহান গোলাপ, শ ম রেজাউল করিম, ওয়ার্কার্স পার্টির রাশেদ খান মেনন, জাসদ নেতা হাসানুল হক ইনু, মইনুদ্দিন খান বাদল ও সাম্যবাদী দলের দিলীপ বড়ুয়া।

বিএনপিকে সঙ্গে নিয়ে কামাল হোসেনের নেতৃত্বে গঠিত জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট বৃহস্পতিবার রাতে গণভবনে সংলাপে অংশ নেয়।

পরে এক সংবাদ সম্মেলনে কামাল বলেন, এ আলোচনায় বিশেষ কোনো সমাধান তারা পাননি। আর জোটের সবচেয়ে বড় দল বিএনপির ফখরুল সাংবাদিকদের বলেন, আলোচনায় তারা সন্তুষ্ট নন।

এই জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট গঠনের প্রক্রিয়ায় বিকল্প ধারাও ছিল; কিন্তু বিএনপি জামায়াতে ইসলামীর সঙ্গ না ছাড়ায় তাদের নিয়ে আপত্তির কথা জানিয়ে শেষ মুহূর্তে তাতে যোগ দেয়নি বি চৌধুরীর দল। পরে বিএলডিপি, বাংলাদেশ ন্যাপ ও এনডিপিকে নিয়ে বদরুদ্দোজা চৌধুরীর নেতৃত্বে গঠিত হয় যুক্তফ্রন্ট।

জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট গঠনের আগে কামাল হোসেন ও বি চৌধুরী মিলে একাদশ সংসদ নির্বাচনে সব দলের অংশগ্রহণ নিশ্চিত করতে ৫ দফা দিয়েছিলেন।

ওই পাঁচ দফায় ভোটের তফসিল ঘোষণার আগে রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে আলোচনার মধ্য দিয়ে নির্বাচনকালীন সরকার গঠনের দাবি ছিল।

পাশাপাশি সংসদ ভেঙে দেওয়া, ইসি পুনর্গঠন, ইভিএম ব্যবহার না করা, সেনাবাহিনীকে বিচারিক ক্ষমতা দিয়ে মোতায়েনের দাবি তুলেছিলেন তারা।

সেসব দাবি নিয়েই যুক্তফ্রন্ট সংলাপে অংশ নেবে বলে আগেই সাংবাদিকদের জানিয়েছিলেন বিকল্পধারার মহাসচিব মান্নান।

আরও পড়ুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *